সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :
যে কোন ধরনের মিউজিক ভিডিও, সাউন্ড রেকর্ড, ইসলামী সঙ্গীত, ওয়াজ মাহফিল ভিডিও এবং এডিটিং করার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন- আজাদ খান, পরিচালক- একে ফিল্ম মাল্টিমিডিয়া, মোবা: 01878305010.
সংবাদ শিরোনাম :
টেকনাফ উপজেলায় আন্ত:ধর্মীয় সংলাপ বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত টেকনাফে টেসাস কার্যালয় উদ্বোধন করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আবুল মনসুর শারদীয়া দূর্গা পূজার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী টেকনাফে হোয়াইক্যং হাইওয়ে থানা পুলিশের উদ্যোগে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত টেকনাফে ৭ হাজার ৮ শত ৬০ জন কর্মহীন জেলে সহায়তা চান মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিতের নির্দেশ – মন্ত্রিসভার ইতিহাসে প্রথম দুই সুপার ওভারের এক ম্যাচে জয় টেকনাফ পূর্ব পৌর এলাকায় ৯ ঘন্টা বিদ্যুৎ থাকবে না ভর্তি পরীক্ষা হবে বিশ্ববিদ্যালয়ে সংবাদ সংগ্রহকালে যমুনা টিভির কক্সবাজার প্রতিনিধি নূরুল করিম রাসেল আহত
টেকনাফ পৌরশহরের গনি মার্কেটে “ঢাকা কস্তুরী” হোটেলের খাবারে টিকটিকি:অভিযান জরুরী

টেকনাফ পৌরশহরের গনি মার্কেটে “ঢাকা কস্তুরী” হোটেলের খাবারে টিকটিকি:অভিযান জরুরী

মোঃ আরাফাত সানী, টেকনাফ টিভি:::

কক্সবাজার টেকনাফে পৌর শহরে অনেক খাবার হোটেলে অস্বাস্থ্যকর, নোংরা পরিবেশে খাবার তৈরীর অভিযোগের শেষ নেই। বিশেষ করে পৌর শহরের হোটেলে ১৪ নং গণি মার্কেটে নাস্তা করার সময় নাস্তার ডালে টিকটিকির সন্ধান পাওয়া যায়।

এই ঘটনা নিয়ে কাস্টমার ও হোটেল কতৃপক্ষের মধ্যে অনেক্ষণ বাকবিণ্ডা হয়। পরে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে হোটেল কতৃপক্ষে’র দায়িত্বরত ম্যানেজার কামাল ও গিয়াস উদ্দিন তৎক্ষনিক বয় ছেলে ও বাবু্র্চিকে চাকুরী থেকে বরখাস্ত করেছেন বলে জানান। এই “ঢাকা কস্তরী” হোটেলে দীর্ঘ দিন যাবত মায়ানমারের রোগাক্রান্ত ও অপরিষ্কার অপরিচ্ছন্ন বাবুর্চি ও বয় ছেলে দিয়ে রান্নাবান্না সহ খাদ্য পরিবেশন করে আসছিল।
হোটেলের রান্না ঘর ছাড়া বসার স্হান গুলো চকচকে পরিস্কার রাখলেও রান্নাঘর নোংরা অতিরিক্ত অপরিষ্কার। কাস্টমারগণ হোটেলের মূল অংশের চকচকে সুন্দর দেখে খাবারের জন্য ভিড় করে। কিন্তু অপরিষ্কার ও নোংরা পরিবেশ থেকে রান্না করে খাবার পরিবেশের করা হয় তা কিন্তু কিউ জানে না। প্রতি দিনের বাসি খাবার গুলো রেখে দিয়ে পরের দিনের রান্নাকৃত খাবারের সাথে মিশিয়ে বিক্রি করে বলে প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক লোকজন জানিয়েছেন। এমনকি এই নোংরা পরিবেশের রান্না ঘরে, মরা মুরগী, বাশি মাছ,পরিত্যক্ত গরু, খাঁসির মাংস রান্না করে পরিবেশন করার অভিযোগেরও শেষ নেই। রাঁধার কাজে মায়ানমারের পুরুষের পাশাপাশি বিভিন্ন রোগে রোগান্নিত রোহিঙ্গা মহিলারা কাজ করে থাকে বলে প্রত্যক্ষদর্শী
সূত্রে জানা যায়। এর পাশাপাশি উক্ত হোটেলের মালিক গলাকাটা ব্যবসায়ী নামে পরিচিত,খাবারের জিনিসের দাম আকাশছোঁয়া। কোন কাস্তমার কর্ণপাত করে,এতো দাম কেন জানতে চাইলে তাকে হেনস্তা করে ছাড়ে,এমন অভিযোগও করেছেন,অনেক কাস্টমার ।নোংরা পরিবেশের জন্য অথিতে ভ্রাম্যমাণ
আদালত কর্তৃক অনেক টাকা জরিমানা করেছে। এরপরও হোটেল কতৃপক্ষের কোনো ধরণের টনক নড়েনি।টেকনাফের বিভিন্ন হোটেলে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে স্হানীয় হোটেলের পরিবেশ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন ও খাবারের মান উন্নত করা, গলাকাটা দাম কমানোর লক্ষ্যে মানুষের সু-স্বাস্থ্য রক্ষার্থে উপজেলা প্রশাসনের প্রতি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে শাস্তি প্রদানের জন্য জোর দাবী জানিয়েছেন সচেতন মহল।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© টেকনাফ টিভি.কম | সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত ২০১৯ ওয়েব ডেভেলপার : ফ্রিল্যান্সার আজাদ খান